গোসলখানায় প্রস্রাব করা যাবে কি? এ বিষয় শরীয়ত কি বলে?

আব্দুল্লাহ ইবনে মুগাফফাল রা. সূত্রে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন:

لَا يَبُولَنَّ أَحَدُكُمْ فِي مُسْتَحَمِّهِ ثُمَّ يَغْتَسِلُ فِيهِ

“তোমাদের কেউ যেন গোসলখানায় প্রস্রাব না করে। অথচ সেখানেই সে গোসল করে থাকে।”

(তিরমিযী, নাসাঈ ও ইবনে মাজাহ। এ তিনটি গ্রন্থের অধ্যায়: পবিত্রতা আর অনুঃ গোসলখানায় পেশাব করা অপছন্দনীয়।)

আল্লামা মুহাম্মদ বিন সালেহ আল উসাইমীন রহ. উক্ত হাদিসের ব্যাখ্যায় বলেন,

“মানুষ যেখানে গোসল করে সেখানে যেন প্রস্রাব না করে। কারণ এতে মনে ওয়াসওয়াসা (কুমন্ত্রণা) সৃষ্টি হয়। উদাহরণ স্বরূপ, সে মনে মনে বলবে: আমার কাপড় বা শরীরে পেশাব লাগল কি না। এভাবে মনে সন্দেহের উদ্রেক হবে। কারণ পানির ছিটার সাথে গায়ে বা কাপড়ে পেশাব লেগেছে কি না সে সে ব্যাপারে নিশ্চিত নয়।”

(লিকাউল বাবিল মাফতুহ ৩০/১৬৮)

বর্তমান যুগের গোসলখানায় কি প্রস্রাব করা জায়েয হবে?

আমরা জানি, বর্তমান যুগে ইটপাথর দ্বারা মোজাইক করা টয়লেটগুলোতে তৎক্ষণাৎ পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা থাকে। সুতরাং সেখানে প্রস্রাব করা হলেও তা সাথে সাথেই পাইপ বেয়ে দূরে চলে যায়। সুতরাং এ ক্ষেত্রে সেখানে প্রস্রাব করতে কোন অসুবিধা নেই।

তবে যদি পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকে বরং গোসলের স্থানে পানি জমা থাকে বা কাঁচামাটি বা বালুময় স্থান হয়-যেখানে পানি পড়লে সেখানেই পানি শুষে নেয় তাহলে সেখানে প্রস্রাব করা ঠিক নয়। কারণ এতে সেখানে প্রস্রাব করা হলে তা পানির সাথে উঠে এসে গায়ে বা শরীরে লাগার সম্ভাবনা রয়েছে যা মনের মধ্যে সন্দেহ সৃষ্টির কারণ হবে।

আবদুল্লাহ ইবনে মাজাহ (রহঃ) বলেন, আমি মুহাম্মদ বিন ইয়াজিদ (রহঃ) কে বলতে শুনেছি, তিনি আলী বিন মুহাম্মদ আত-তানাফিসী (রহঃ) কে বলতে শুনেছেন,

“এ নির্দেশ সেই সময়ের যখন গোসলখানা কাঁচা ছিল। যেহেতু বর্তমানকালে গোসলখানা ইট ও চুনা দ্বারা নির্মিত হয়। তাই যদি কেউ পেশাব করার পর সে সেখানে পানি ঢেলে দেয়, তবে তাতে কোন দোষ নেই।”

(সুনান ইবনে মাজাহ, ৩০৪)

ইবনে কাইয়েম রহ. উপরোক্ত মত ব্যক্ত করে বলেন, এটাই জুমহুর তথা অধিকাংশ ফিক্বাহবীদদের অভিমত।

আরও পড়ুনঃ গোসল সংক্রান্ত মাসআলা-মাসআয়েল

উত্তর প্রদানেঃ
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
(লিসান্স, মদিনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, সউদী আরব)
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, সউদী আরব।