0

প্রশ্নঃ ইফতার তৈরি, ইফতারের নানা আইটেম আর ইফতার পার্টির বিভিন্ন ছবি ফেসবুকে শেয়ার দেয়া কি ঠিক?

উত্তরঃ ফেসবুকে এ সব ছবি প্রচার-প্রসার করার কী উদ্দেশ্য? 

আমাদের জানা দরকার যে, মানুষকে ইফতার খাওয়ানো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। কারণ হাদীসে এসেছে, যে ব্যক্তি কোন রোযাদারকে ইফতার করায় সে ব্যক্তি সমপরিমান সওয়াবের অধিকারী হয়।

অনুরূপভাবে ইফতারী তৈরি করাও নেকির কাজ। এর মাধ্যমে একটি ইবাদত পালনে সহায়তা করা হয়। এ কারণে এতেও সওয়াব রয়েছে ইনশাআল্লাহ।

কিন্তু দ্বীনী উদ্দেশ্য ছাড়া লোক দেখানোর জন্য এ সব বিষয় ফেসবুকে প্রচার করলে তা ‘রিয়া’ বা লোকদেখানো আমল হিসেবে গুনাহগার হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

ইফতারের ছবি আপলোড করে যারাঃ

মূলত: যারা ফেসবুকে এ সব আপলোড দেয়া তারা কিছু লাইক, শেয়ার আর কমেন্ট পাওয়ার আশায় থাকে। যার কারণে তারা কিছুক্ষণ পরপর টাইমলাইন চেক করতে থাকে। আর পর্যাপ্ত লাইক না বা কমেন্ট না পেলে তাদের মন খারাপ থাকে!! তাহলে এগুলো ‘রিয়া’ হতে বাকি থাকল কোথায়?

সুতরাং এ সব অসুস্থ মানসিকতা থেকে বের হয়ে কেবল আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য মহিমান্বিত মাহে রামাযানে যথাসম্ভব নিভৃতে এ সব ইবাদত করা দরকার। তাহলে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করার পাশাপাশি আখিরাতে লাভ করা যাবে অবারিত সওয়াব।

কিন্তু এগুলোর পেছনে দুনিয়াবী কোন উদ্দেশ্য থাকলে এ সকল কর্মকাণ্ড শুধু নিষ্ফল হবে না বরং তা রিয়া (ছোট শিরক) এর রূপান্তরিত হয়ে তাদের জন্য আখিরাতে ধ্বংসাত্মক পরিণতি ডেকে আনবে। আল্লাহ আমাদেরকে ক্ষমা করুন। আমীন।

আরও পড়ুনঃ রমাযানে কতিপয় বিদআত ও সুন্নত বিরোধী কার্যক্রম

উত্তর প্রদানেঃ
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
(লিসান্স, মদিনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, সউদী আরব)
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, সউদী আরব।

সোশ্যাল মিডিয়ায় আমরা


রমাযানে কুরআন বিষয়ে যেদিকে গুরুত্ব দিবো

Previous article

ইফতারের পূর্বে দুআ কবুলের সম্ভাবনা বেশি কি?

Next article

You may also like