0

প্রশ্ন: ওজু ছাড়া কি মসজিদে আজান দেওয়া জায়েজ? আর ‘ওজু ছাড়া আজান দিলে সংসারে দুর্ভিক্ষ নেমে আসে’ কথাটা কতটুকু সত্য?

উত্তরঃ নিম্নে এ দুটি প্রশ্নের উত্তর প্রদান করা হল:

ওজু ছাড়া আজান দেওয়া

ইসলামে আজান দেয়ার জন্য পবিত্রতা শর্ত করা হয় নি। সুতরাং ওজু ছাড়া আজান দেওয়ায় কোন আপত্তি নাই। তবে পাক-পবিত্র অবস্থায় আজান দেয়া উত্তম তাতে কোন সন্দেহ নাই।

এ ব্যাপারে পূর্বসূরি ও আধুনিক যুগের কতিপয় আলেমের বক্তব্য তুলে ধরা হল:

ইবরাহীম নাখায়ী রহঃ (জন্ম: ৪৭, মৃত্যু: ৯৬ হিজরি) বলেন,

لاَ بَأْسَ أَنْ يُؤَذِّنَ عَلَى غَيْرِ وُضُوءٍ

“অজু ছাড়া আজান দেওয়ায় কোন অসুবিধা নেই।”

(মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা/ ২২০২)

কাতাদা, আব্দুর রহমান বিন আওয়াদ, হাম্মাদ প্রমুখ মনিষীগণ বলেন,

لَا بَأْس أَن يُؤذن الرجل وَهُوَ على غير وضوء

“কোন ব্যক্তি যদি অজু ছাড়া আজান দেয় তাহলে তাতে কোন অসুবিধা নাই।”

(সহিহ বুখারীর ভাষ্য গ্রন্থ উমদাতুল কারী, অধ্যায়: আজান)

হানাফি মাজহাবের প্রসিদ্ধ ফিকাহের কিতাব হেদায়ার গ্রন্থকার বলেন,

وَيَنْبَغِي أَن يُؤذن وَيُقِيم على طهر، لِأَن الْأَذَان وَالْإِقَامَة ذكر شرِيف، فَيُسْتَحَب فِيهِ الطَّهَارَة، فَإِن أذن على غير وضوء جَازَ،

“পবিত্র অবস্থায় আজান ও একামত দেয়া উচিৎ। কেননা আজান-একামত মর্যাদাপূর্ণ জিকির। তাই এ ক্ষেত্রে পবিত্রতা মোস্তাহাব। তবে ওজু ছাড়া আজান দেয়াও জায়েজ।”

(সহিহ বুখারীর ভাষ্য গ্রন্থ উমদাতুল কারী, অধ্যায়: আজান)

শাইখ আব্দুল্লাহ বিন বাজ রহঃ বলেন,

<الأذان ليس من شرطه الوضوء، إذا أذن وهو على غير وضوء أجزأ حتى ولو كان على جنابة ليس قرآن هو، الأذان ليس بقرآن إنما هو ذكر، والنبي عليه السلام كان يذكر الله على كل أحيانه.
فالمسلم يذكر الله دائمًا حتى ولو كان على جنابة يذكر الله، حتى الحائض تذكر الله، والنفساء تذكر الله. والأذان من ذكر الله، فإذا أذن وهو على جنابة أو أذن وهو على غير وضوء فأذانه صحيح، لكن الأفضل أن يكون على طهارة، هذا هو الأفضل

“ওজু থাকা আজানের শর্ত নয়। কেউ যদি ওজু ছাড়াও আজান দেয় তাহলেও যথেষ্ট হবে-এমনকি গোসল ফরজ থাকা অবস্থায়ও। আজান কুরআন নয় বরং তা হল, আল্লাহর জিকির। আর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সর্বাবস্থায় আল্লাহর জিকির করতেন। একজন মুসলিম সর্বাবস্থায় আল্লাহর জিকির করতে পারে যদিও নাপাক অবস্থায় থাকে। এমনকি ঋতুমতী ও প্রসূতি মহিলাও আল্লাহর জিকির করতে পারে। আর আজান আল্লাহর জিকিরের অন্তর্ভুক্ত।


সুতরাং নাপাক অবস্থায় আজান দিলে অথবা ওজু ছাড়া আজান দিলে আজান সহিহ হবে। কিন্তু উত্তম হল, পবিত্র অবস্থায় আজান দেয়া। এটাই উত্তম।” (শাইখ বিন বাজ রহ. এর অফিসিয়াল ওয়েব সাইট)
এ ছাড়াও পূর্ববর্তী এবং আধুনিক যুগের বহু আলেম এ ব্যাপারে ফতোয়া প্রদান করেছেন।

ওজু ছাড়া আজান দিলে সংসারে দুর্ভিক্ষ নেমে আসে’ এ কথা কি সঠিক?

উত্তরঃ এ কথা সঠিক নয়। ওজু ছাড়া আজান দেওয়া হলে যদি সংসারে দুর্ভিক্ষ নেমে আসত তাহলে হাদিসে অবশ্যই তা নিষেধ করা হত অথচ কোন হাদিসে এ ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা আসে নি। সুতরাং এখান থেকে প্রমাণিত হয় যে, এটা সম্পূর্ণ বাতিল ও কুসংস্কার পূর্ণ কথা। আল্লাহু আলাম।

আরও পড়ুনঃ একামত এর সময় মুয়াজ্জিনের অবস্থান

উত্তর প্রদানেঃ
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
(লিসান্স, মদিনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, সউদী আরব)
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, সউদী আরব।


একামত এর সময় মুয়াজ্জিনের অবস্থান

Previous article

ইসলামের দৃষ্টিতে ওয়েডিং ফটোগ্রাফি

Next article

You may also like